Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

           পাসপোর্ট সেবা

   বাংলাদেশ পাসপোর্ট আইন আদেশ ১৯৭৩ এবং বাংলাদেশ পাসপোর্ট বিধিমালা ১৯৭৪ অনুসারে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর বাংলাদেশী নাগরিকদেরকে পাসপোর্ট প্রদান করে থাকে। এই সেবার আওতায় আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, মানিকগঞ্জ, মানিকগঞ্জ জেলার অধিক্ষেত্রের পাসপোর্ট বিষয়ক সেবা প্রদান করে থাকে।

 

১। পাসপোর্ট: পাসপোর্ট বা ভ্রমন দলিল হল বিদেশ যাওয়ার ছাড়পত্র।

 

২। বাংলাদেশ হতে অন্য কোন দেশে গমনের জন্য আপনার বাংলাদেশ পাসপোর্ট একান্ত প্রয়োজন। আপনাকে প্রয়োজনীয় পাসপোর্ট সেবা প্রদানের জন্য আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, মানিকগঞ্জ,প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

 

৩। আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, মানিকগঞ্জের সেবা সমুহ :

         নতুন পাসপোর্ট প্রদান;

         পুরাতন পাসপোর্ট নবায়ন;

         পুরাতন পাসপোর্টে তথ্য সংযোজন, পরিবর্তন ও সংশোধন।

 

৪। গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ০৩ (তিন) ধরনের মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP) হচ্ছে।

       ক) সাধারন পাসপোর্ট (সবুজ রং) : সর্বসাধারনের জন্য।

       খ) অফিসিয়াল পাসপোর্ট (নীল রং) : সরকারী চাকুরীজীবিদের জন্য।

       গ)কুটনৈতিক পাসপোর্ট (লাল রং) : ডিপার্টমেন্ট ও সরকার অনুমোদিত ব্যক্তিবর্গের জন্য।

 

৫। মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP)-র জন্য করনীয় :

          www.dip.gov.bdওয়েব সাইট থেকে অথবা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, মানিকগঞ্জ হতে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP)-র আবেদন ফরম সংগ্রহ করে(*) চিহ্নিত ঘর গুলো অবশ্যই পুরন করতে হবে। এক্ষেত্রে ক্রমিক নং ১ ব্যতীত অন্যান্য ক্রমিক ইংরেজীতে (বড় হাতের)পুরণ করা অত্যাবশ্যক।

             আবেদন ফরম এর নির্দিষ্ট স্থানে ছবি সংযুক্ত করে ছবিসহ ফর্ম সত্যায়ন করতে হবে।

             যাদের জন্য একটি আবেদনপত্র প্রয়োজন :

 

     ক)মাননীয় সংসদ সদস্য, তিনটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ, সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভার ও কাউন্সিলর, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সকল পর্যায়ের সামরিক – বেসামরিক সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারী, সংশ্লিষ্ঠ প্রতিষ্ঠান/সংস্থার প্রত্যয়ন সাপেক্ষে আধাসরকারী, সায়াত্তশাসিত ও রাষ্টায়াত্ত সংস্থার কর্মরত স্থায়ী কর্মকর্তা/কর্মচারী, অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারী ও তাদের স্ত্রী/স্বামী এবং সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারীর স্ত্রী/স্বামী সহ ১৫ (পনের) বছরের কম বয়সী সন্তান, এক্ষেত্রে আবেদনকারী সাধারন ফি প্রদান করে জরুরী সেবা পাবেন।

 

    খ) বাংলাদেশী জন্মসনদ এর যর্থাথতা নিশ্চিতকরন সাপেক্ষে, প্রবাসে অবস্থানরত/বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিকদের ১৫ (পনের)বছরের কম বয়সী সন্তানদের জন্য হাতে লেখা পুরাতন পাসপোর্টের নবায়ন ও নতুন পাসপোর্ট ইস্যূর ক্ষেত্রে এবং হাতে লেখা পুরাতন পাসপোর্ট সর্মপন করে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP) গ্রহনের ক্ষেত্রে ও একটি আবেদনপত্র প্রয়োজন ।

    

        উপরের ক ও খ ক্রমিকে উল্লেখিত আবেদনকারীদের তদন্ত প্রতিবেদন প্রয়োজন নেই।

 

     অন্যান্য সকলের জন্য ০২ (দুই)টি আবেদনপত্রের প্রয়োজন। এ সকল আবেদনকারীদের তদন্ত প্রতিবেদন প্রয়োজন।

 

     আবেদনপত্রের সাথে জাতীয় পরিচয় পত্র / জন্মনিবন্ধন সনদের সত্যায়িত ফটোকপি যুক্ত করতে হবে।

 

     ব্যাংক এশিয়া, ঢাকা ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক, প্রীমিয়ার ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক এবং ট্রাস্ট ব্যাংক সংশ্লিষ্ট সাখায় ৩০০০/- টাকা (সধারন) অথবা ৬০০০/- টাকা (জরুরী) জমা দিয়ে ব্যাংক ভাউচার আবেদনপত্রের উপরে আঠা দিয়ে লাগাতে হবে। অনুকুল পুলিশ প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে আবেদন করার ১০ তম দিনে মধ্যে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP)পেতে ৬০০০/- টাকা এবং ২২ দিনের মধ্যে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP)পেতে ব্যাংকে ৩০০০/- টাকা জমা দিতে হবে।

 

       যে সকল ব্যক্তি পাসপোর্টের আবেদনপত্র ও ছবি সত্যায়ন করতে পারবেন : মাননীয় সংসদ সদস্য, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, ডেপুটি মেয়র ও কাউন্সিলর, পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর, গেজেটেড কর্মকর্তা, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, বেসরকারী কলেজের অধ্যক্ষ, বেসরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, জাতীয় দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক, নোটারী পাবলিক ও আধাসরকারী/সায়াত্তশাসিত/রাষ্টায়াত্ত সংস্থার জাতীয় বেতন স্কেলের ৭ম ও তদূর্দ্ধ গ্রেডের কর্মকর্তা ।

 

       অত্র অফিসের আবেদনপত্র জমা দিতে হবে, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্তৃক আবেদনপত্র যাচাই করার পর আবেদনপত্রের ডাটা সংরক্ষন

করা হবে, যাকে বলে প্রি-এনরোলমেন্ট।

এরপর আবেদনকারীর ছবি, আঙ্গুলের ছাপ ও স্বাক্ষর নেয়া হবে,যাকে বলে বায়ো এনরোলমেন্ট।

       প্রি ও বায়ো এনরোলমেন্ট সম্পন্ন করার পর আবেদনকারীকে তার তথ্য এবং পাসপোর্ট গ্রহনের সম্ভাব্য তারিখ সম্ভলিত Delivery Slip দেওয়া হবে।

        Delivery Slip ভালো ভাবে পড়তে হবে যাতে করে তথ্য সম্পর্কিত কোনরুপ ভুল না থাকে।

        কোনরুপ ভুল হলে তখনই কর্তব্যরত ব্যক্তিকে জানাবেন।

        আবেদনকারীর বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানায় তদন্ত করা হবে। এরপর অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে পাসপোর্ট প্রীন্ট দিয়ে আবেদনকারীর মুঠো ফোনে SMS পাঠানো হবে।

        Delivery Slip জমা দিয়ে আবেদনকারীকে পাসপোর্ট (MRP) গ্রহন করতে হবে।পাসপোর্ট আবেদনকারীর পরিবর্তে অন্য কেহ পাসপোর্ট গ্রহন করতে হলে লেটার অব অথরিটি (ক্ষমতা অর্পন পত্র) অবশ্যই দাখিল করতে হবে।

 

লক্ষনিয় কিছু বিষয় :

       আবেদনপত্র পুরনের পূর্বে উহার শেষ পৃষ্টায় বর্ণিত সাধারন নির্দেশনাসমূহ ভালোভাবে পড়তে হবে।

       একবার মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP) গ্রহনের পর তথ্য গোপন করে পুনুরায় মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP)এর আবেদন করলে পরবর্তী আবেদনটি গৃহীত হবেনা।

       তথ্য গোপন করে পাসপোর্ট নেওয়া বা নেওয়ার চেষ্টা করা দন্ডনীয় অপরাধ।

       একই ব্যক্তি একই সময়ে একাধিক পাসপোর্ট ধারন করতে পারবেনা।

       কোন তথ্যর প্রয়োজন হলে সংশ্লিষ্ট অফিসের তথ্য কেন্দ্রে যোগাযোগ করুন।

       কোন অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট অফিসের কর্মকর্তার সহিত সরাসরি যোগাযোগ করুন।

 

                 আবেদনপত্র দাখিলের পর মোবাইলে পাসপোর্ট প্রিন্ট সম্পর্কিত বিষয়ে জানতে হলে ইংরেজীতে এমআরপি (স্পেসে)এনরোলমেন্ট আইডি লিখে ৬৯৬৯ নম্বরে এসএমএস করতে হবে (উদাহরণ স্বরুপ MRP 560100000071717 লিখে 6969 নম্বরে SEND করুন)।

 

সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে পাসপোর্ট সেবা পাওয়া প্রত্যেক বাংলাদেশীর নাগরিক অধিকার। অতএব পাসপোর্ট সেবা প্রদানে বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের আওতাধীন আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, মানিকগঞ্জ সর্বদাই তৎপর।।